1. xsongbad@gmail.com : Harry Deb Nath : Harry Deb Nath
  2. tauhidcrt8@gmail.com : tauhidcrt8 :
বিশ্ববিদ্যালয়েরও ভিসি নিয়োগ দেবে সরকার - Songbadjogot.com
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
  • Welcome To Our Website...* এন জি ও ‘আরবান সমিতি’ –মাইক্রো ক্রেডিট ফাইনান্সে জরুরী ভিত্তিতে কিছু সংখ্যক মহিলা/পুরুষ মাঠ কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। বয়স ২৫ উর্ধ্ব হতে হবে। আগ্রহী প্রার্থীদেরকে সরাসরি নিম্নোক্ত নাম্বারে যোগাযোগ করুনঃ ০১৩০১০৪১২৮৮  আমাদের অনলাইন নিউজ পোর্টালে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে এই নাম্বারে যোগাযোগ করুনঃ ০১৮১৫-৫৮৭৪১০

বিশ্ববিদ্যালয়েরও ভিসি নিয়োগ দেবে সরকার

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ই এম রাহাত ইসলাম
  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১
  • ১৭ বার ভিউ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ই এম রাহাত ইসলাম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষ বোর্ড অব ট্রাস্টিজে শিক্ষাবিদদের অন্তর্ভুক্ত করার বিধান আসছে। ট্রাস্টি বোর্ডের পরিধি ৯ জনের পরিবর্তে ১৫ জন করে অন্তত ৫ জন শিক্ষাবিদ রাখার বিধান রেখে বিদ্যমান বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন সংশোধনের সুপারিশ করা হচ্ছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ দেবে সরকার। অর্থাৎ, এখন ট্রাস্টি বোর্ড থেকে উপাচার্যের প্যানেল দেওয়ার যে সুপারিশ রয়েছে সেটি রহিত হবে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মতোই সরকারই নিয়োগ দেবে ভিসি-প্রোভিসি ও কোষাধ্যক্ষ। 

জানতে চাইলে কমিটির আহ্বায়ক বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা আইনে বেশ কিছু পরিবর্তনের জন্য আমরা সুপারিশ করতে যাচ্ছি। এ নিয়ে কয়েকদফা বৈঠক হয়েছে। আরও দুই-একটি সভা দরকার হবে। এরপর প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আইন সংশোধনের জন্য কমিটির সুপারিশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জমা দেওয়ার পর মন্ত্রী নেতৃত্বের বৈঠক করে তা চূড়ান্ত করে মন্ত্রিপরিষদে পাঠানো হবে। মন্ত্রিপরিষদে চূড়ান্ত অনুমোদন পেলে তা চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য যাবে জাতীয় সংসদে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন পরিবর্তন করে প্রস্তাবিত সুপারিশ অন্তর্ভুক্ত হলে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারি ও রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বাড়াবে বলে মনে করেন মালিকদের সংগঠন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতি। সংগঠনের সহ-সভাপতি ও ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পুরোপুরি চলে প্রাইভেট অর্থায়নে। এখানে পাবলিক-প্রাইভেট পার্থক্য। এখন সরকার যদি সব কিছুতে হস্তক্ষেপ করতে আসে তবে তা হবে অপ্রত্যাশিত।

তিনি বলেন, একাডেমিক উন্নয়ন, বৈষম্য নিরসন এবং সমতা প্রতিষ্ঠা যেকোনো প্রস্তাবকে আমরা স্বাগত জানাই। তবে অনিয়মের কথা বলে ইউজিসি বা অন্য কোনো সংস্থার নিয়ন্ত্রণ আরোপের বিধান যুক্ত করা হলে তা হবে অপ্রত্যাশিত। তাহলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আর হাই স্কুলের কোনো পার্থক্য থাকবে না। 

ইউজিসি সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯১ সালে প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের অনুমতি দেওয়া হলেও এগুলো মনিটরিং করার জন্য কোনো আইন ছিল না। ২০১০ সালে প্রথমবারের মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন সংসদে পাস হয়। এরপর আইনটি নানা সংশোধনী আনতে বিভিন্ন মহলের দাবি ওঠে। এর প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির উদ্যোগে এই আইন আধুনিকায়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এ লক্ষ্যে ওই বছর অক্টোবর মাসে ৫ সদস্যের কমিটির গঠন করা হয়। এতে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির কয়েকজন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ইউজিসির প্রতিনিধি সদস্য হিসেবে ছিলেন। ওই কমিটি বহু আগে প্রতিবেদন দাখিল করে। 

কিন্তু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিওটি সদস্যদের একটি বড় অংশের বিরোধিতার কারণে সংশোধনী ধামাচাপা পড়ে যায়। পরে ২০১৮ সালের ২৭ মে সংসদীয় কমিটির বৈঠকে সংশোধনীর ওপর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় (মালিক) সমিতির প্রতিনিধিদের নিয়ে শুনানি হয়। এতে সমিতির চার সদস্য যোগ দেন এবং প্রত্যেকেই বিভিন্ন ধারার ওপর আনা সংশোধনী প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করেন। এ কারণে কার্যক্রম আর এগোয়নি। সর্বশেষ ৪ আগস্ট এটি নিয়ে বৈঠক করে আইনটির খসড়া প্রায় চূড়ান্ত করেছে। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
2020 সব স্বত্ব সংরক্ষিত, সংবাদ জগত এই সাইটের কোন তথ্য ছবি বা ভিডিও অনুমতি ছাড়া সংগ্ৰহ বা প্রকাশ আইনত দন্ডনীয়
Theme Dwonload From ThemeNeed.Com