1. xsongbad@gmail.com : Harry Deb Nath : Harry Deb Nath
  2. tauhidcrt8@gmail.com : tauhidcrt8 :
তালতলীতে সাংবাদিক পরিবারকে অবরুদ্ধ করে হয়রানির অভিযোগ। - Songbadjogot.com
বুধবার, ২৯ মার্চ ২০২৩, ১২:২৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি:
  • Welcome To Our Website...* এন জি ও ‘আরবান সমিতি’ –মাইক্রো ক্রেডিট ফাইনান্সে জরুরী ভিত্তিতে কিছু সংখ্যক মহিলা/পুরুষ মাঠ কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। বয়স ২৫ উর্ধ্ব হতে হবে। আগ্রহী প্রার্থীদেরকে সরাসরি নিম্নোক্ত নাম্বারে যোগাযোগ করুনঃ ০১৩০১০৪১২৮৮  আমাদের অনলাইন নিউজ পোর্টালে বিজ্ঞাপন দিতে চাইলে এই নাম্বারে যোগাযোগ করুনঃ ০১৮১৫-৫৮৭৪১০

তালতলীতে সাংবাদিক পরিবারকে অবরুদ্ধ করে হয়রানির অভিযোগ।

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ২০ জুলাই, ২০২২
  • ১৭৪ বার ভিউ

নিজস্ব প্রতিনিধি বরগুনার তালতলীতে স্থানীয় এক সাংবাদিকের ক্রয়কৃত সম্পত্তি জবরদখল করতে না পারায় সাংবাদিক পরিবার অবরুদ্ধ ও তার ক্রয়কৃত জমির সিমানা পিলার উপরে ফেলা সহ জমি দখলের জন্য জমিতে রোপন কৃত কলা ও কচু গাছ কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে ওই এলাকার আ.রব ও তার ছেলে শাহিনের বিরুদ্ধে। এমনকি কলা চারা সহ নানা ধরনের বর্জ ফেলছে সাংবাদিকের বাড়ির পুকুরে।স্থানীয় ওই সাংবাদিক তালতলী সাংবাদিক ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

সাংবাদিকের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে,১৯ শে জুলাই মঙ্গলবার সকাল ৯ টার দিকে উপজেলার কড়ইবাড়িয়া ইউনিয়নের ঝাড়াখালী এলাকায় ইব্রাহিম সুমনের জমি দখল করতে শাহিন, আ.রব সহ বেশ কয়েক জন লোক দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আসে এবং জমির গাছ কাটতে থাকে। সেখানে কেউ নামলে তার গর্দান কেটে নিবে মর্মে হুমকি দেয়। সংবাদ পেয়ে তালতলী থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। অন্য দিকে দেখা যায় বাড়ির লোক জন চলাচলের রাস্তা আটকে দেয়। চতুর্দিকে বেড়া দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে তাদের। তার জমির উপর দিয়েও তাকে চলতে বাধা দেয়া হয়। আ.রব তার বাড়ির জন্য ওয়াল টানে যেখানে ইব্রাহিম সুমনেরও জমি আছে বলে জানা যায়। 

সাংবাদিক ইব্রাহিম সুমন মুঠোফোনে বলেন, আমার জমি তারা জবর দখলের পায়তারা করছে। আমাদের অবরুদ্ধ করে রাখছে। ওই জমি তাদের দখলে না দিলে আমাদের জানে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। বর্তমানে আমি বাড়ি না থাকায় তারা আমার জমি দখল করতে আসছে। এছাড়াও ২০১৯ সালে আমাদের বেশ কয়েকটি গাছ কেটে নিয়ে যায়। যার তদন্ত চলমান।  এবিষয়ে আ.রব ও তার ছেলে শাহিনের সাথে যোগাযোগের জন্য গেলে তারা স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে নারাজ। তালতলী থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, মুঠোফোনে অভিযোগ পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। উভয় পক্ষ থানায় আসবে বলে জানিয়েছে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক সোসাইটির কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও মহাসচিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর